×
Recipes

জমে যাবে সকাল বা সন্ধ্যার নাস্তা, মুসুর ডাল ও ময়দা দিয়ে চটপট বানিয়ে ফেলুন খাস্তা ডালপুরি

আমাদের পশ্চিমবঙ্গে সকালের জলখাবার হিসাবে পাওয়া যায় ডাল পুরী। খুবই বিখ্যাত ও জনপ্রিয় এই ডাল পুরী রাস্তার পাশের ছোট দোকান থেকেই বেশি পাওয়া যায়। তবে আপনিও চান যে এই ডালপুরী বাড়িতে বানিয়ে খেতে? মন ভালো করা সকালের এই বিখ্যাত জলখাবার আজ আমাদের প্রতিবেদনের মাধ্যমে দেখানো হলো।

জমে যাবে সকাল বা সন্ধ্যার নাস্তা, মুসুর ডাল ও ময়দা দিয়ে চটপট বানিয়ে ফেলুন খাস্তা ডালপুরি -

প্রথমেই দেখাই পুর বানানোর পদ্ধতি –

১) একটা বাটিতে পরিমান মতো মুসুর ডাল নিয়ে জলের মধ্যে কিছু সময় ভিজিয়ে রাখুন।

জমে যাবে সকাল বা সন্ধ্যার নাস্তা, মুসুর ডাল ও ময়দা দিয়ে চটপট বানিয়ে ফেলুন খাস্তা ডালপুরি -

২) তার পরে কড়াইয়ে নিয়ে সেই ডাল পর্যাপ্ত জল নিয়ে সিদ্ধ করে নিন।

৩) এবার এই পুর তৈরী করার জন্য কড়াইয়ে তেল গরম করে নিতে হবে।

জমে যাবে সকাল বা সন্ধ্যার নাস্তা, মুসুর ডাল ও ময়দা দিয়ে চটপট বানিয়ে ফেলুন খাস্তা ডালপুরি -

৪) তার মধ্যে কেটে রাখা পেঁয়াজ, রসুন কুচি, গোল মরিচ গুঁড়ো, ভাজা জিরা ও শুকনো ধনে পাতা কুচি দিয়ে ভেজে নিন।

৫) এবার তার মধ্যে যোগ করে দিন সিদ্ধ করে রাখা মুসুর ডাল।

জমে যাবে সকাল বা সন্ধ্যার নাস্তা, মুসুর ডাল ও ময়দা দিয়ে চটপট বানিয়ে ফেলুন খাস্তা ডালপুরি -

৬) বেশ কিছু সময় নাড়িয়ে একটা আঠালো হয়ে কড়াই থেকে উঠে আসলে বুঝবেন আপনার পুর তৈরী হয়ে গেছে।

এবার ডো অর্থাৎ ময়দা তৈরী করে নিতে হবে –

জমে যাবে সকাল বা সন্ধ্যার নাস্তা, মুসুর ডাল ও ময়দা দিয়ে চটপট বানিয়ে ফেলুন খাস্তা ডালপুরি -

১) পরিমান মতো ময়দা নিয়ে নিন একটা পাত্রে।

২) তার মধ্যেই স্বাদ মতো লবন অর্থাৎ নুন, অল্প চিনি ও সাদা তেল নিয়ে নিন।

জমে যাবে সকাল বা সন্ধ্যার নাস্তা, মুসুর ডাল ও ময়দা দিয়ে চটপট বানিয়ে ফেলুন খাস্তা ডালপুরি -

৩) এবার অল্প অল্প জল মিশিয়ে বেশ আঠালো করে মেখে নিন ময়দা।

৪) কিছু সময় একটা ভেজা শুতির কাপড় চাপা দিয়ে সেই ময়দা রেখে নিন।

৫) এবার নেচি কেটে তার মধ্যে বানিয়ে রাখা সেই ডালের পুর ভরে বেলে নিলেই তৈরী ডাল পুরী।

গরম গরম তেলে ভেজে নিয়ে ছোলার ডাল কিংবা আলুর দমের সাথে এই দুর্দান্ত খাবারের মজা উঠাতে ভুলবেন না।