×
Offbeat

৩ দিনের ছুটি নিয়ে অবশ্যই ঘুরে আসুন এই চারটি জায়গা থেকে, পাহাড়-ঝরনা-সমুদ্র দেখে পড়ে যাবেন প্রেমে

নতুন বছর শুরু হয়ে গেছে আর এই শীতে ঘুরতে যাবো না তা হয় নাকি। ৩ দিনের ছুটি কিন্তু জানুয়ারি মাসে পেয়েই যাবেন আর তার মধ্যেই টুক করে ঘুরে আসুন দুর্দান্ত কিছু জায়গায়। চিন্তা নেই অফিসের কাজ ও সন্তানের পরীক্ষা সবকিছু সামলে ঘুরে আসুন কলকাতা থেকে কাছের এই জায়গা গুলিতে।

৩ দিনের ছুটি নিয়ে অবশ্যই ঘুরে আসুন এই চারটি জায়গা থেকে, পাহাড়-ঝরনা-সমুদ্র দেখে পড়ে যাবেন প্রেমে -

১) ডুবলাগড়ি সমুদ্র সৈকত : হাওড়া থেকে এক্সপ্রেস ট্রেনে বালাসোর স্টেশনে নেমে গাড়ি বা অটো ভাড়া করে চলে যান ডুবলাগড়ি সমুদ্র সৈকতে। ঝাউবনের জঙ্গলের পাশে টেন্ট করে থাকবে পারবেন আর দেখবেন সারি সারি লাল কাঁকড়া। দুর্দান্ত জোয়ারের জলে ভেজাতে পারবেন আপনার শরীর। এর পাশেই আছে বাগদা বিচ। আপনি চাইলে সেখানেও রাত কাটাতে কিংবা খাওয়া-দাওয়া সারতে পারেন।

৩ দিনের ছুটি নিয়ে অবশ্যই ঘুরে আসুন এই চারটি জায়গা থেকে, পাহাড়-ঝরনা-সমুদ্র দেখে পড়ে যাবেন প্রেমে -

২) কিরিবুরু ও মেঘাহাটুবুরু : হাওড়া থেকে জনশতাব্দি ধরলে দুপুর একটা নাগাদ নামবেন বারবিলে। সেখানে একটা হোটেল নিয়ে দুই রাত থাকলেই ঝাড়খণ্ডের পশ্চিম সিংভূমের এই জায়গা সম্পূর্ণ ঘুরে দেখতে পারবেন। মেঘাটুবুরু থেকে অসাধারণ সূর্যাস্ত যেমন দেখবেন তেমনই পাচেরি ঝরনা, সারান্ডার জঙ্গল, ফুলবাড়ি জঙ্গল, মুরগা মহাদেব মন্দির, জটেশ্বর ঝরনা ও মন্দির ঘুরে দেখতে পারবেন। পাহাড়ের গা বেয়ে আসা ঝর্নায় আপনি চাইলে নিজেও গা ভিজিয়ে নিতে পারেন।

৩ দিনের ছুটি নিয়ে অবশ্যই ঘুরে আসুন এই চারটি জায়গা থেকে, পাহাড়-ঝরনা-সমুদ্র দেখে পড়ে যাবেন প্রেমে -

৩) পুরুলিয়া : পশ্চিমবঙ্গের এই দুর্দান্ত জেলাটি ঘুরে না দেখলে হবে না। বাস কিংবা ট্রেনে আপনি কলকাতা থেকে পুরুলিয়া চলে যেতে পারবেন। পলাশের বনের মধ্যে দিয়ে বয়ে চলা রাস্তা আপনাকে প্রেমে ফেলতে বাধ্য। এই প্রখর শীতে লেকের জলে দেশ-বিদেশ থেকে পরিযায়ী পাখিরা এসে সময় কাটায়। বিহারিনাথ পাহাড়, পাঞ্চেত ড্যাম, গড়পঞ্চকোট আর জয়চণ্ডী পাহাড় ঘুরে দেখার জন্য অসাধারণ জায়গা। এখান থেকে অনায়াসে ঘুরে আসতে পারেন কল্যাণেশ্বরী মন্দির ও মাইথন ড্যাম।

৩ দিনের ছুটি নিয়ে অবশ্যই ঘুরে আসুন এই চারটি জায়গা থেকে, পাহাড়-ঝরনা-সমুদ্র দেখে পড়ে যাবেন প্রেমে -

৪) ওড়িষ্যার গোপালপুর বিচ: খুব নিরিবিলি ঘোরার জায়গা যদি আপনার পছন্দ হয় তাহলে এখানে যেতে পারেন। পুরী থেকে দূরত্ব ১৭১ কিলোমিটার তবে পুরীর মতো কোনো ভিড় নেই। বিচের ধারেই গড়ে উঠেছে বেশ কিছু হোটেল যেখানে রাত কাটাতে পারবেন। গোপালপুর থেকে ঘুরে নিতে পারেন চিলকার প্রবেশদ্বার।