×
Entertainment

খাওয়াদাওয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছিল, ভেবেছিলাম মরে যাব! সুবানকে ডিভোর্স দেওয়া নিয়ে বিস্ফোরক তিয়াশা

‛আমি কাউকে ছেড়ে দিইনি, সম্পর্ক ভাঙে দুজনের সম্মতিতে’। ‛জোশ Talks’-এ এসে নিজের জীবন নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করলেন অভিনেত্রী তিয়াসা লেপচা (Tiyasha Lepcha)। বাংলা টেলিভিশন জগতের জনপ্রিয় একজন অভিনেত্রী হলেন তিয়াসা। জি বাংলার পর্দায় ‛কৃষ্ণকলি’ ধারাবাহিক দিয়ে প্রথম টেলিভিশন জগতে পা রাখেন। আর প্রথম সিরিয়াল দিয়েই বাজিমাত করেন। তবে, সিরিয়াল শেষ হওয়ার পর থেকে নিজের ব্যাক্তিগত জীবন নিয়েই বারংবার উঠে এসেছেন সংবাদের শিরোনামে।

খাওয়াদাওয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছিল, ভেবেছিলাম মরে যাব! সুবানকে ডিভোর্স দেওয়া নিয়ে বিস্ফোরক তিয়াশা -

গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি খাতায় কলমে বিচ্ছেদ হয়েছে তিয়াসা ও সুবানের (Tiyasha – Suban)। এখন তারা কেবল একে অপরের বন্ধু। তবে, ঠিক কি কারণে তাদের বিচ্ছেদ ঘটেছে সেই প্রসঙ্গে বারবার উঠে এসেছে তৃতীয় ব্যাক্তির প্রসঙ্গ। গোবরডাঙ্গার সাধারণ পরিবারের মেয়ে তিয়াশা। স্বামী সুবানের হাত ধরেই পা রেখেছিলেন গ্ল্যামার দুনিয়ায়। অভিনয়ের যাবতীয় কিছু সুবানের থেকেই শিখেছেন।

খাওয়াদাওয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছিল, ভেবেছিলাম মরে যাব! সুবানকে ডিভোর্স দেওয়া নিয়ে বিস্ফোরক তিয়াশা -

কিন্তু সেই স্বামীর সঙ্গেই ডিভোর্স হওয়ার পর বারংবার তিয়াশাকে কটুক্তি সহ নানান প্রশ্নের সম্মুখে পড়তে হয়েছে। তাহলে কি সাফল্য পেয়েই বদলে গেলেন তিয়াসা? সকলের সব প্রশ্নের এবার খোলামেলা উত্তর দিলেন অভিনেত্রী নিজেই। আর সেটাই ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওর শুরুতেই তিয়াসাকে নিজের পরিচয় পর্ব সারতে দেখা যায়। এরপর তিয়াসা বলেন অনেকেই ভাবেন অভিনেতা-অভিনেত্রীদের মন নেই।

খাওয়াদাওয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছিল, ভেবেছিলাম মরে যাব! সুবানকে ডিভোর্স দেওয়া নিয়ে বিস্ফোরক তিয়াশা -

আসলে তাদেরও সব আছে। তারাও কাজ করে। শুধু তাদের টিভিতে দেখা যায় আর বাকিদের টিভিতে দেখা যায়না। কিন্তু তাদেরও মন আছে। হাসি, আনন্দ, দুঃখ সব আছে। তারপরই তিয়াসা নিজের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বলেন যে, আমার বলতে কোনো দ্বিধা নেই আমি আমার স্বামীর হাত ধরেই সব শিখেছি। একশন, কাট সবকিছু। এত বড় একটা প্লাটফর্ম আমাকে উপহার দেওয়ার জন্য সত্যিই সুবানকে ধন্যবান।

খাওয়াদাওয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছিল, ভেবেছিলাম মরে যাব! সুবানকে ডিভোর্স দেওয়া নিয়ে বিস্ফোরক তিয়াশা -

তারপরই তিয়াসা বলেন যে, ‛আমি কাউকে ছেড়ে দিয়েছি এই লাইনটায় আমার সমস্যা আছে’। আমি ধরা বা ছাড়ার কে? দুটো মানুষের সম্মতিতেই ডিভোর্সটা হয়। আজও মানুষজন ডিভোর্সের জন্য মেয়েদেরকে দায়ী করেন। সবার কারণেই সমস্যা হতে পারে। তাই বলে মেয়েদের দায়ী করা উচিত নয়। প্রত্যেকেরই নিজের জীবনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার রয়েছে।

খাওয়াদাওয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছিল, ভেবেছিলাম মরে যাব! সুবানকে ডিভোর্স দেওয়া নিয়ে বিস্ফোরক তিয়াশা -

এছাড়াও তিয়াশা একসময় এই সবকিছুর কারণে নিজেকে শেষ করে দেওয়ার কথাও ভাবতেন বলে জানিয়েছেন। যদিও পরের নিজের জোরে সবকিছু থেকে বেরিয়ে এসেছেন। তবে, সবশেষে সকলের উদ্যেশে তিয়াশা একটি প্রশ্ন ছুড়ে দেন। বলেন যে, মা-বাবা সন্তানকে সাইকেল কিনে দেন। তাই বলে কি সাইকেল শেখা হয়ে যায়? সকলেই নিজের চেষ্টায় সাইকেল চালানো শিখতে হয়। তেমনই সুবানের দেওয়া প্ল্যাটফর্ম নিজের চেষ্টায় গড়ে নিয়েছেন।

বর্তমানে ‛বাংলা মিডিয়াম’ সিরিয়ালে চুটিয়ে অভিনয় করছেন তিয়াসা। আর এই সিরিয়ালের হাত ধরে আবারও একবার পর্দায় ফিরে এসেছে নীল-তিয়াসা জুটি।